রবিবার ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ


গলাচিপায় মাঁচায় তরমুজ চাষে সফল কৃষক জাহাঙ্গীর

প্রকাশিত : ০৪:৩৫ অপরাহ্ণ, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার 21 বার পঠিত

রিপন বিশ্বাস গলাচিপা প্রতিনিধি:

জাহাঙ্গীর ফরাজি। পটুয়াখালীর   গলাচিপা উপজেলার রতনদী তালতলী ইউনিয়নের কৃষক।  প্রায় ২০ বছর ধরে কৃষি কাজে যুক্ত রয়েছে। এর আগে কখনোই বর্ষা মৌসুমে তরমুজ চাষ করেননি। গত বছর ভগ্নিপতি শখের বসে বর্ষা মৌসুমে শষা গাছের মাচার সাথে ১৭টি তরমুজ বীজ বপন করেন। ওই সময় ১৭টি গাছে ৭০টি তরমুজ হয়। এ দেখে উদ্ভুদ্ধ হয়ে নিজের ২০ শতাংশ জায়গায় বর্ষা মৌসুমে তরমুজ চাষ করেন। এতে মাত্র ২৫ হাজার টাকা খরচ করে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে কমপক্ষে ৩ লাখ টাকার তরমুজ বিক্রি করতে পারবেন বলে তিনি আশা করেন। বর্ষায় তরমুজ চাষ করে সফলতা পেয়েছে কৃষক জাহাঙ্গীর। ফলন ভালো হওয়ায় অন্য কৃষকদের মধ্যেও আগ্রহ বেড়েছে। সরেজমিনে গলাচিপার রতনদীতালতলী ইউনিয়নের গ্রামর্দ্দন গ্রামে জাহাঙ্গীর ফরাজির ক্ষেতে গিয়ে এসব তথ্য জানাগেছে। তরমুজ চাষী মো. জাহাঙ্গীর ফরাজি (৪৫) জানান, গত বছর ভগ্নিপতি জাহাঙ্গীর মুন্সি তার বাড়িতে শসা বেদিতে ১৭টি তরমুজ বীজ বপন করেন। ওই সময় ফলন ভালো দেখে নিজে বর্ষা মৌসুমে তরমুজ চাষের পরিকল্পনা করেন। এর ফাঁকে খুলনায় মাছের পোনা কিনতে গেলে সেখানে কৃষকদের সাথে কথা বলেন। তাদের কাছে জেনে আসেন বর্ষা মৌসুমে তরমুজ চাষের পদ্ধতি। এর পর এ বছর কোরবাণীর পাঁচদিন আগে নিজের বাড়ি গ্রামর্দ্দনে ২০ শতাংশ জায়গায় মাটির বেদি করেন। সেখানে মাচা করে তরমুজ বীজ বপন করেন। নিয়মিত সার কীটনাশক ব্যবহার করেন। কিন্তু মৌসুমে যে পরিমাণ দিতে হয় সার কীটনাশক বর্ষা মৌসুমে তার চেয়ে অনেক কম ব্যবহার করতে হয়েছে। এতে ফলনও ভালো হয়েছে। মাটির দশটি বেডে মাচা করে দুই পাশে মাচা করে দিয়েছেন। গ্রীষ্ম মৌসুমে শ্রমিক ও সেচ ব্যবস্থায় এই ২০ শতাংশ জমিতে প্রায় লাখ টাকা খরচ হতো। আর বর্ষা মৌসুমে মাত্র ২৫ হাজার টাকার মধ্যেই সব হয়ে গেছে। আবার দামও পাওয়া যায় বেশি। বর্ষায় তরমুজ চাষ করতে গেলে নিজেকে একটু সতর্ক থাকতে হয়। কারণ সঠিক সময় সার ব্যবস্থাপনা, মাচা তৈরি করা, ডগা কাটা, ডগা মাচায় উঠিয়ে দিতে হয়। মাচায় উঠিয়ে দেওয়ার পর জাল পরিয়ে দেওয়া হয়। এর পর ফলন আসলে তরমুজ ব্যাগিং করতে হয়। শ্রমিক জসিম ফরাজী বলেন, বর্ষায় তরমুজ আমাদের এলাকায় জাহাঙ্গীর চাচায়ই এই প্রথম চাষ করছে। আমরা ৭জন তার তরমুজ ক্ষেতে নিয়মিত কাম করছি। প্রতিবছর এই সময় আমাদের কোন কাম থাহে না। এ বছর তার লগে কাম কইররা আমরা ভালো আছি। বেকার সময় কাডান লাগছে না।’ এ বিষয় জাহাঙ্গীল ফরাজী বলেন, বর্ষা মৌসুমে তরমুজ চাষে খরচ কম লাভ বেশি। আর এসব তরমুজের চাহিদা ঢাকাতে বেশি। আমি এক সপ্তাহের মধ্যে প্রথম কিস্তিতে ৯০০ তরমুজ বিক্রি করতে পারমুুু। তাতে কমপক্ষে আড়াই থেকে তিন লাখ টাকা বিক্রি হবে।’ তিনি আরো বলেন, এক সপ্তাহের মধ্যে আমি আবার এক একর জমিতে পাঁচ হাজার তরমুজ চারা লাগামু (বপন)। যা আগামী তিন মাসের মধ্যে ফলন দিবে। যার অল্প জায়গা আছে সে মাচা পদ্ধিতে চরমুজ চাষ করতে পারে। অল্প পুঁজিতে লাভ বেশি হবে।’ এ প্রসঙ্গে গলাচিপা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এআরএসএম সাইফুল্ল্হ বলেন, গলাচিপায় জাহাঙ্গীর ফরাজি ও নলুয়াবাগী এলাকায় আলতাফ হোসেন নামের কৃষক বর্ষা মৌসুমে তরমুজ চাষ করছেন। দুজনেরই ফলন ভালো হয়েছে। আগামী বছর বর্ষা মৌসুমে তরমুজ চাষীর সংখ্যা বাড়বে বলে ধারণা করছি।’ তিনি আরো বলেন, ‘বার মাসই তরমুজ চাষ করা যায়। বর্ষা মৌসুমে মাচা পদ্ধতিতে তরমুজ চাষ করতে প্রথম বছর একটু বেশি খরচ হয়। কারণ প্রথম বছর মাটির বেদি, মাচায় তৈরি করতে খরচ বেশি। পরের বছর তা খরচ কমে যায়। লাভ ভালো হয়।’

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দর্পণ বাংলা'কে জানাতে ই-মেইল করুন। আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দর্পণ বাংলা'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

বিজ্ঞাপন

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দর্পণ বাংলা | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি | Developed by UNIK BD